চিটাগংকে সহজে হারালো কুমিল্লা

সিলেট সিক্সার্সের কাছে হেরে শুরু করা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পেলো। চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে ৮ উইকেটের বিশাল জয় পেয়েছে তারা। ৭ উইকেটে ১৪৩ রান করে চিটাগং। জবাবে ১৭.২ ওভারে ২ উইকেটে ১৪৪ রান করে কুমিল্লা।

দুই ম্যাচ শেষে ২ পয়েন্ট পেলো কুমিল্লা। পয়েন্ট টেবিলে তারা উঠে এলো চার নম্বরে। ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকা সিলেট সন্ধ্যায় মুখোমুখি হবে রাজশাহী কিংসের। আর ২ পয়েন্ট নিয়ে দুই ও তিনে আছে ঢাকা ডায়নামাইটস ও রংপুর রাইডার্স।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে টস হেরে ব্যাট করতে নামে চিটাগং। প্রথম দুই জুটিতে যা একটু রান তুলতে পেরেছে তারা। সৌম্য সরকার ৬৩ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন লুক রনকির সঙ্গে। ৪০ রান করে মোহাম্মদ নবীর বলে আউট হন নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যান, চিটাগংয়ের ইনিংস শেষে এটাই ছিল ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ। রনকির বিদায়ের পর দিলশান মুনাবিরাকে নিয়ে ৩৮ রানের জুটিতে সৌম্য দলকে এনে দেন শতরান।

দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন ইমরুল

২১ রানে মুনাবিরা আউট হওয়ার পর কুমিল্লার বোলারদের সামনে নাকাল হয়ে পড়ে চিটাগংয়ের ব্যাটসম্যানরা। ৩২ রানের ব্যবধানে ৬ উইকেট হারায় তারা। ৩৩ বলে সৌম্য ৩৮ রানে আউট হন। এরপর কেবল সিকান্দার রাজা দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছান। ১৮ রানে অপরাজিত ছিলেন জিম্বাবুয়ান ব্যাটসম্যান।

ম্যাচসেরা মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন কুমিল্লার পক্ষে। দুটি পান ডোয়াইন ব্রাভো।

১৪৪ রানের লক্ষ্যে নেমে জস বাটলার দুটি শক্ত জুটি গড়েন লিটন দাস ও ইমরুল কায়েসকে নিয়ে। মাত্র ৪.২ ওভারে ৪৩ রান করার পর ভাঙে কুমিল্লার উদ্বোধনী জুটি। ১৪ বলে তিন চার ও এক ছয়ে ২৩ রানে আউট হন লিটন। বাটলার ও ইমরুলের দ্বিতীয় উইকেটে ৫৭ রান সহজ জয়ের ভিত গড়ে দেয়। হাফসেঞ্চুরির আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছাড়েন বাটলার। ৪৮ রান করেন তিনি ৪২ বলে তিন চার ও দুই ছয়ে।

 ম্যাচসেরা সাইফউদ্দিনআর কোনও উইকেট হারায়নি কুমিল্লার। মারলন স্যামুয়েলস ও ইমরুলের অপরাজিত ৪৪ রানের জুটিতে ১৬ বল বাকি থাকতে জয় পায় সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। ৩১ বলে ৩৩ রানে খেলছিলেন ইমরুল। স্যামুয়েলস ৩৫ রানে অপরাজিত ছিলেন ১৮ বল খেলে, চারটি চার ও এক ছয় ছিল তার ইনিংসে।

আরও দেখুন

সম্পর্কিত খবর