১২ নভেম্বর সমাবেশে সর্বোচ্চ জমায়েতের পরিকল্পনা বিএনপির

সাত নভেম্বর বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সর্বোচ্চ গণজমায়েত নিশ্চিত করতে চায় বিএনপি। সমাবেশে জমায়েত নিশ্চিত করতে প্রস্তুতি সভা শুরু করেছে দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো।আগামী ১২ নভেম্বর দুপুরে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সমাবেশটি অনুষ্ঠিত হবে। এতে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপস্থিত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। ইতোমধ্যে প্রশাসন থেকে সমাবেশ করার বিষয়ে ইতিবাচক ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে বিএনপিকে।

বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান বলেন, ‘১২ নভেম্বর সমাবেশ আয়োজনের বিষয়ে প্রশাসনের ইতিবাচক ইঙ্গিত মিলেছে। বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলো প্রস্তুতি নিচ্ছে।’
বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল নেতা জানান, সরকার নানান কারণ দেখিয়ে সাত নভেম্বরের সমাবেশ আয়োজন প্রলম্বিত করছে। কিন্তু বিএনপি এই সমাবেশ করতে মরিয়া।

নেতাদের অভিযোগ, সাত নভেম্বর দিনটিতে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিতে দেওয়া হয়নি। এ কারণে কোনও না কোনোভাবেই সমাবেশ করতে চায় বিএনপি।

সমাবেশ সফল করতে বুধবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে বিএনপির নয়া পল্টনের কার্যালয়ে প্রস্তুতি সভা করেছে দলটির ঢাকা মহানগর উত্তর। সংগঠনের সহ-সভাপতি মুন্সি বজলুল বাছিদের সভাপতিত্বে মহানগরের নেতারা বৈঠকে অংশ নেন।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী সোহেল বলেছেন, ১২ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানমুখী জনস্রোত ঠেকানোর সাধ্য কারও নেই। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মহাসমাবেশে জনতার জোয়ার সৃষ্টি হবে।’

বুধবার বিকালে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি’র প্রস্তুতি সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি সবাইকে শান্তিপূর্ণভাবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের প্রতিটি থানা, ওয়ার্ড, পাড়া, মহল্লা থেকে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে  সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানান।

সমাবেশের প্রস্তুতি নিতে সভা করেছে যুবদল, ছাত্রদলসহ কয়েকটি সংগঠন। সংগঠনগুলোর নেতারা জানিয়েছেন, তারা ১২ নভেম্বরের সমাবেশে সর্বোচ্চ জমায়েত করার চেষ্টা করছেন।

আরও দেখুন

সম্পর্কিত খবর