ফেসবুক স্ট্যাটাসের জেরে রংপুরে পুলিশ-গ্রামবাসী সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ২৫

ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাসের জেরে রংপুরের সদর উপজেলার পাগলাপীর ঠাকুরবাড়ি গ্রামে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে জনতার ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে গুলিতে একজন নিহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন ২৫ জন।

পুলিশ জানায়, নারায়ণগঞ্জে ফতুল্লার একটি গার্মেন্ট কারখানায় কাজ করেন টিটু রায়। থাকেন সেখানেই। তিনি পাগলাপীর ঠাকুরবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা। কয়েকদিন আগে নিজের ফেসবুক আইডিতে এই তরুণ আপত্তিকর একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন বলে অভিযোগ তোলে গ্রামবাসী। এ কারণে পাগলাপীর মমিনপুর হাড়িয়াল কুঠিসহ আশেপাশের এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

শুক্রবার জুমার নামাজের পর আশেপাশের ৬-৭টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ টিটু রায়ের ঠাকুরবাড়ি গ্রামের বাড়িতে হামলা চালাতে এলে পুলিশের সঙ্গে জনতার সংঘর্ষ শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শত শত রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পুলিশ। পরে তারা গুলি চালালে আহত হন ছয় গুলিবিদ্ধ। তাদের রংপুর মেডিক্যাল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহতদের মধ্যে হামিদুল ইসলাম নামে এক তরুণ মারা গেছেন। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ঠাকুরবাড়ি গ্রামের এমন অন্তত ৩০টি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে

এদিকে বিক্ষুব্ধ জনতা ঠাকুরবাড়ি গ্রামের অন্তত ৩০টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে ও আগুন জ্বালিয়ে দেয়। বেশ কয়েকটি বাড়ির মালামাল লুট হয়েছে বলে অভিযোগ গ্রামের হিন্দু পাড়ার মানুষদের।

এ ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ জনতা প্রায় চার ঘণ্টা রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কে অবরোধের মাধ্যমে বিক্ষোভ করেছে। এ কারণে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বিপুলসংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান করলেও এখনও পরিস্থিতি উত্তপ্ত রয়েছে। জনতা বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে। কোতোয়ালী থানার ওসি (অপারেশন) মোকতারুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তারা চেষ্টা করছেন।

আরও দেখুন

সম্পর্কিত খবর